অভিভাবক হিসেবে লেখা যাবে মায়ের নাম

অভিভাবক হিসেবে লেখা যাবে মায়ের নাম

ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা সনদ পেতে ফরম পূরণের সময় অভিভাবক হিসেবে পিতার নাম লেখার বাধ্যবাধকতা আর থাকছে না।

এখন থেকে কারও পিতা না থাকলে কিংবা ইচ্ছাকৃতভাবে পিতার পরিচয় ব্যবহার করতে না চাইলে মা কিংবা আ’ইনগতভাবে অন্য কোনো অভিভাবকের নাম যুক্ত করতে পারবেন বলে রায় ঘোষণা দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আজ ২৪ জানুয়ারি মঙ্গলবার বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট আইনুননাহার সিদ্দিকা, এসএম রেজাউল করিম ও আয়েশা আক্তার। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত।

শিক্ষা সনদের জন্য ফরম পূরণের ক্ষেত্রে আগে শুধু ‘বাবার নাম’ ব্যবহার করা যেত। ঐতিহাসিক এই রা’য়ে’র ফলে এখন থেকে বাবার নামের পাশাপাশি আরও ২ টি অপশন যুক্ত হলো।

এতে করে কেউ চাইলে বাবার পরিচয় ব্যবহার না করেও শিক্ষা সনদ পেতে ফরমপূরণের সময় মা কিংবা আইনগতভাবে বৈধ অভিভাবকের নাম লিখতে পারবেন।

আদালতে আজ রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী আইনুননাহার সিদ্দিকা। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী এসএম রেজাউল করিম এবং আয়েশা আক্তার। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত।

মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার আগে শিক্ষার্থী তথ্য ফরমে অত্যাবশ্যকীয়ভাবে বাবার নাম পূরণ করতে না পারায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড রাজশাহী ঠাকুরগাঁও জেলার এক তরুণীকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে প্রবেশপত্র দিতে অস্বীকৃতি জানায়।

পরবর্তী সময় এ ঘটনার যথাযথ অনুসন্ধানে পাওয়া তথ্যের ভি’ত্তি’তে এবং সন্তানের অভিভাবক হিসেবে মায়ের স্বীকৃতি প্রতিষ্ঠার দাবিতে মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট), বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এবং নারীপক্ষ যৌথভাবে জনস্বার্থে রিট করে।

সেই রিটের শুনানি নিয়ে বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহম্মেদ ও বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরীর হা’ই’কো’র্ট বেঞ্চ রুলসহ আদেশ দেন। একপর্যায়ে রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে আজ রায় দিলেন দেশের উচ্চ আদালত।

জাতীয় সংবাদ