বিতর্কের তুঙ্গে নো বল; ভারতের পক্ষে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের অভিযোগ!

বিতর্কের তুঙ্গে নো বল; ভারতের পক্ষে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের অভিযোগ!

টানটান রূদ্ধশ্বাস ম্যাচে পাকিস্তানকে চার উইকেটে হারিয়ে টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের অভিযান শুরু করল ভারত।

এদিনের ম্যাচে জয়ের পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করেন অভিজ্ঞ বিরাট কোহলি।

একটা সময়ে ৩১ রানে চার উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারত।

সেখান থেকে মাটি কামড়ে থেকে ৫৩ বলে অপরাজিত ৮২ রানের ইনিংস খেলে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন কোহলি।

তবে শ্বাসরুদ্ধকর এমন জয় ছাপিয়ে এদিনের ম্যাচে ২০তম ওভারে মোহাম্মদ নওয়াজের নো বল আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

শেষ ওভারে ম্যাচে জয়ের জন্য ভারতের প্রয়োজন ছিল ১৬ রান। আর ওভারটি করতে আসেন পাকিস্তানের স্পিনিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নওয়াজ।

প্রথম বলে হার্দিক পান্ডিয়াকে বাবরের ক্যাচ বানিয়ে ভারতকে ম্যাচ থেকে অনেকটা ছিটকে দেন। দ্বিতীয় বলে দিনেশ কার্তিক এক রান নিয়ে স্ট্রাইক দেন কোহলিকে। তৃতীয় বল থেকে কোহলি ২ রান আদায় করেন।

ম্যাচের চতুর্থ বলে নওয়াজের করা ডেলিভারিটি ফুলটস পান কোহলি।

সেটি ডিপ স্কয়ার লেগ দিয়ে উড়িয়ে কোহলি ৬ রান আদায় করে নেন। ছয় মারার পর কোহলি আম্পায়ারের কাছে এ বলকে নো বলের দাবি জানান।

সেই সময়ে আম্পায়ার বলটিকে নো দেন। এতে করে ম্যাচে এগিয়ে যায় ভারত। কারণ সে সময় স্ট্রাইকে ছিলেন সেট ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি।

ফ্রি হিট ডেলিভারিটি তবে তারপরের বলেই ওয়াইড করেন নওয়াজ। কিন্তু ফ্রি হিট কন্টিনিউ থাকে। পরের বলে বোল্ড হন কোহলি।

কিন্তু ফ্রি হিট থাকায় বোল্ড হয়েও রানের জন্য দৌড় দেন তিনি।

স্টাম্পে লেগে বল গেল থার্ড ম্যানে গেলে সেখান থেকে আফ্রিদি ফিল্ডিং করে পাঠানোর আগেই ৩ রান নেন তিনি।

পঞ্চম বলটি লেগ সাইডে করেন নওয়াজ। উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে এসে মারতে গিয়ে বল মিস করেন দিনেশ কার্তিক।

তবে ভুল করেননি রিজওয়ান। স্টাম্পিং করে ফিরিয়ে দেন কার্তিককে। আবার ম্যাচে নাটকীয়তা!

কার্তিক আউট হওয়ার পর রোমাঞ্চ জমে ক্ষীর। তখন পাকিস্তানের আশায় পানি ঢেলে ওয়াইড দিয়ে বসেন নওয়াজ।

নতুন ব্যাটার রবিচন্দ্রন অশ্বিন মাথা ঠান্ডা রেখে ছেড়ে দেন সেটি। ১ বলে ২ থেকে লক্ষ্য তখন ১ বলে ১।

ভারত হারছে না সেটি নিশ্চিত। পাকিস্তানের সর্বোচ্চ সেরা ফল ম্যাচটিকে সুপার ওভারে নিয়ে যাওয়া।

এবার আর কোনো নাটকীয়তা নয়। ঠাণ্ডা মাথায় মিডঅফের ওপর দিয়ে মেরে ভারতের রোমাঞ্চকর জয় নিশ্চিত করেন অশ্বিন।

মেলবোর্ন দেখল টি-টোয়েন্টির ইতিহাসের অন্যতম সেরা ম্যাচ, অন্যতম নাটকীয় এক শেষ ওভার!

উল্লেখ্য, মেলবোর্নে টস জিতে বিশ্বকাপের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে আগে ব্যাট করে পাকিস্তান।

ইফতিখার আহমেদ ও শান মাসুদের হাফসেঞ্চুরিতে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৫৯ রান সংগ্রহ করে তারা। জবাবে ভারত বিরাট কোহলির অপরাজিত ৮২ রান ও হার্দিক পান্ডিয়ার লড়াকু ৪০ রানের কল্যাণে ৪ উইকেটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।

খেলাধুলা