বাবার চেয়ে ২২ মাসের বড় ছেলে। দুজনের নামে রয়েছে বয়স্ক ভাতার কার্ডও। তুলছেন ভাতার টাকা। জাতীয় পরিচয়পত্রে প্রকৃত জন্ম তারিখ গোপন রেখে বয়স বাড়িয়ে ভাতা গ্রহণের এমন অভিযোগ উঠেছে ফরিদপুরের সদর উপজেলার ধোপাডাঙ্গা গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেন বকুর বি;রু;দ্ধে।

এ নিয়ে সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ফরিদপুর জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখত অভিযোগ দেন ধোপাডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা জালাল মোল্যা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মো. আনোয়ার হোসেন বকুর আগের করা জাতীয় পরিচয়পত্রে তার জন্ম তারিখ ১ জানুয়ারি ১৯৬৫ ছিল। পরে বকু বাদ দিয়ে শুধু মো. আনোয়ার হোসেন নামে নতুন করে আরেকটি জাতীয় পরিচয়পত্র করেন। তাতে জন্ম তারিখ উল্লেখ করেন ১৯৪০ সালের ৫ জুলাই।

এদিকে, তার বাবা আ. গফুর মোল্যার জাতীয় পরিচয়পত্রে তারিখ ৫ অক্টোবর ১৯৪২। সে হিসেবে ছেলের বয়স বাবার থেকে ২২ মাস বেশি।

অভিযোগ দেওয়া জালাল মোল্যা বলেন, মো. আনোয়ার হোসেন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন নাম ব্যবহার করে এবং জাতীয় পরিচয় পত্রে বয়স বাড়িয়ে বয়স্ক ভাতা উত্তোলন করছেন।

তার বাবা গফুর মোল্যা তিনিও বয়স্ক ভাতাভোগী। প্রতারণা করার বিষয়টি জানতে পেরে আমি একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে অভিযোগ দায়ের করেছি।

চাঁদপুর ইউনিয়নের আরেক বাসিন্দা ও ব্যবসায়ী মাসুদ পারভেজ জানান, খোঁজ করলে আনোয়ার হোসেন বকুর মতো এমন প্রতারক আরও পাওয়া যাবে।

চেয়ারম্যান ও তার কাছের লোকজনের সহযোগিতায় বয়স বাড়ানোর অভিযোগ তুলে তিনি আরও বলেন, এর আগেও কবির সর্দার নামের এক ব্যক্তি বয়স বাড়িয়ে প্রায় ৫ বছর বয়স্ক ভাতা উত্তোলন করেন।

আনোয়ার হোসেনের বাবা আ. গফুর মোল্যা জানান, তার ছেলে আনোয়ার হোসেন বকুর বয়স ৬০ বছর হতে পারে। এছাড়া অন্য বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে দাবি করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত মো. আনোয়ার হোসেন তার বাবার বয়স নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। তবে তার ভাষ্য, জাতীয় পরিচয়পত্র যারা করেছেন, তারাই হয়তো ভুলে তার বয়স বাড়িয়ে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাঁদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুন্নাহার মুহিদের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করেও পাওয়া যায়নি।

তবে ফরিদপুর জেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এ এস এম আলি আহসান জানান, আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ যদি সঠিক হয়, তাহলে তদন্তপূর্বক অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *