উদ্বোধনী দিনেই আজ মাঠে নামছে স্বাগতিক জার্মানি। তিনবারের চ্যাম্পিয়নরা সর্বশেষ শিরোপা জিতেছিল ১৯৯৬ সালে। উদ্বোধনী ম্যাচে জার্মানদের প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড। ফুটবল মহাযজ্ঞ শুরুর আগে যা জেনে রাখতে পারেন।

লম্বা বাছাইপর্ব শেষে মোট ২৪ দল সুযোগ পেয়েছে প্রতিযোগিতাটির মূল পর্বে। ২৪টি দেশকে মোট ৬টি গ্রুপে ভাগ করা হয়েছে। প্রতি গ্রুপে রয়েছে ৪টি করে দেশ। প্রতিটি গ্রুপ থেকে সরাসরি ২টি করে দল যাবে রাউন্ড অব সিক্সটিনে, তৃতীয় স্থানে থাকা দলেরও নকআউটে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। সেক্ষেত্রে ৬ গ্রুপের তৃতীয় স্থানে থাকা ৬টি দলের মধ্যে শীর্ষ চার ধরে রাখতে হবে।

গ্রুপ এ: জার্মানি, স্কটল্যান্ড, হাঙ্গেরি, সুইজারল্যান্ড

গ্রুপ বি: স্পেন, ক্রোয়েশিয়া, ইতালি, আলবেনিয়া

গ্রুপ সি: স্লোভেনিয়া, ডেনমার্ক, সার্বিয়া, ইংল্যান্ড

গ্রুপ ডি: পোল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, অস্ট্রিয়া, ফ্রান্স

গ্রুপ ই: বেলজিয়াম, স্লোভাকিয়া, রোমানিয়া, ইউক্রেন

গ্রুপ এফ: তুরস্ক, জর্জিয়া, পর্তুগাল, চেক প্রজাতন্ত্র

ভেন্যু
জার্মানির ১০টি ভেন্যুতে হবে এবারের ইউরো। এই ১০টি ভেন্যুর ৯টিই (বার্লিনের অলিম্পিয়াস্টেডিয়ন, মিউনিখের আলিয়াঞ্জ অ্যারেনা, ডর্টমুন্ডের ওয়েস্টফেলেনস্টেডিয়ন, স্টুটগার্টের এমএইচপি অ্যারেনা, গেলসেনকিরচেনের অফ-শালকে, ফ্রাঙ্কফুর্টের ওয়ালস্টেডিয়ন, হামবুর্গের ভল্কসপার্কস্টেডিয়ন, কলোনের এনার্জি স্টেডিয়ন ও লেইপজিগের রেড বুল অ্যারেনা) ২০০৬ সালের বিশ্বকাপে ব্যবহৃত হয়েছিল, শুধু ডুসেলডর্ফের মার্কুর স্পিয়েল অ্যারেনা ২০০৬ বিশ্বকাপে ব্যবহৃত হয়নি, তবে এটিতে ১৯৭৪ সালের বিশ্বকাপ ও ১৯৮৮ ইউরোর ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

একনজরে চ্যাম্পিয়নরা
শিরোপার বিচারে যৌথভাবে ইউরোর সবচেয়ে সফল দল জার্মানি ও স্পেন। দুদলই ৩ বার করে ইউরোর ট্রফি জিতেছে।

২০২১ : : ইতালি
২০১৬ : পর্তুগাল
২০১২ : স্পেন
২০০৮ : স্পেন
২০০৪ : গ্রীস
২০০০ : ফ্রান্স
১৯৯৬ : জার্মানি
১৯৯২ : ডেনমার্ক
১৯৮৮ : নেদারল্যান্ডস
১৯৮৪ : ফ্রান্স
১৯৮০ : পশ্চিম জার্মানি
১৯৭৬ : চেকোস্লোভাকিয়া
১৯৭২ : পশ্চিম জার্মানি
১৯৬৮ : ইতালি
১৯৬৪ : স্পেন
১৯৬০ : সোভিয়েত ইউনিয়ন
ভিএআর সিদ্ধান্ত আরো বিস্তারিত
ইউরো ২০২৪ চ্যাম্পিয়নশিপে ভিডিও এসিস্টেন্ড রেফারিংয়ের সিদ্ধান্তগুলো আগের তুলনায় আরও বিস্তারিতভাবে সমর্থকদের কাছে ব্যাখ্যা করা হবে বলে জানিয়েছে ইউরোপীয়ান ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা উয়েফা।

উয়েফার রেফারিং কমিটির প্রধান রবার্তো রোসেত্তি বলেছেন দর্শকদের আরো ভালভাবে বোঝার জন্য স্টেডিয়ামজুড়ে যে জায়ান্ট স্ক্রিনগুলো থাকবে সেখানে ‘টেকনিক্যাল ব্যাখ্যা’ দেওয়া হবে।

যেভাবে দেখা যাবে
ভারতীয় উপমহাদেশে ইউরো কাপ প্রচারের স্বত্ত্ব পেয়েছে সনি নেটওয়ার্ক৷ এই নেটওয়ার্কের সবগুলো স্পোর্টস চ্যানেল যেমন, সনি স্পোর্টস টেন-টু, সনি স্পোর্টস টেন-টু এইচডি, সনি স্পোর্টস টেন-থ্রি, সনি স্পোর্টস টেন-থ্রি এইচডি’তে উপভোগ করা যাবে ইউরো।

এ ছাড়া লাইভ স্ট্রিমিং করবে সনি লিভ অ্যাপ এবং ওয়েব সাইট। সনি নেটওয়ার্ক ছাড়াও বাংলাদেশে ইউরোর ম্যাচ দেখা যাবে টি-স্পোর্টস টিভি এবং টি-স্পোর্টস অ্যাপে।

আরাও পড়ুন... সেরা উক্তি