পালিয়ে আসা একটি মহিষ তাণ্ডব চালিয়েছে। ফসল ও গাছপালা নষ্ট করার পাশাপাশি ঢুকে যায় ঘরে। এ সময় আক্রমণে বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া আরও একজনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

সোমবার (১৭ জুন) রাত ৮টার দিকে উপজেলার সমিতিরহাট ইউনিয়নের দক্ষিণ নিশ্চিন্তপুর গ্রামের আজিম মুন্সির বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বৃদ্ধের নাম মীর আহমেদ। তিনি ওই এলাকার মৃত হামিদ আলীর ছেলে। তবে আহত ব্যক্তির নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

সমিতিরহাট ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও সদস্য নুরুল আলম বলেন, মহিষটি হঠাৎ আজিম মুন্সির বাড়িতে চলে আসে। কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঢুকে যায় বসতঘরে। ভেতরে থাকা মীর আহমেদকে শিং ও পা দিয়ে আঘাত করলে তিনি মারা যান।

তিনি আরও বলেন, ঘর থেকে বেরিয়ে মহিষটি বিভিন্ন রাস্তা ও বাড়ি হয়ে আরও এক কিলোমিটার দূরে চলে যায়। পরে সেখানে একটি বাড়ির পাকা ঘরে ঢুকে পড়ে এবং ক্লান্ত হয়ে পড়ে যায়। এরপর লোকজন মহিষটিকে ধরে জবাই করে দেয়। সেখানে আরও একজন আক্রমণে আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে পশুটির মালিক পাওয়া যায়নি।

কেউ কেউ বলছেন, মহিষটি রাউজান বা হাটহাজারী থেকে পালিয়ে এসেছে। মহিষের পেছনে পেছনে মোটরসাইকেল নিয়ে দুজন লোক এসেছিল। যখন মহিষের আক্রমণে মানুষের মৃত্যুর খবর শুনেছে, এরপর ওই দুজন পালিয়ে গেছে। তবে কেউ এখনও মালিকানা দাবি করেনি।

ফটিকছড়ি থানার ওসি মীর মো. নুরুল হুদা বলেন, রাউজান থেকে আসা একটা পাগলা মহিষের আক্রমণে একজন লোক মারা গেছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

আরাও পড়ুন... সেরা উক্তি