যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজায় যুদ্ধবিরতির জন্য মার্কিন নেতৃত্বাধীন প্রস্তাবের ব্যাপারে হামাসের জবাব দেয়ার পর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বুধবার প্রধান মধ্যস্থতাকারী কাতারে আলোচনায় যাচ্ছেন।

যুদ্ধবিরতি প্রস্তাব মেনে নিতে হামাসকে চাপ দিতে মধ্যপ্রাচ্যের চার-দেশের সফরের মধ্যে ব্লিঙ্কেন কাতারের শীর্ষ নেতৃত্বের সাথে বৈঠক করবেন। হামাস তাদের বার্তা কাতারের কাছে পৌঁছে দিয়েছে।

আলোচনার সাথে সম্পর্কিত একটি সূত্র জানায়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ৩১ মে গৃহীত পরিকল্পনার বিষয়ে হামাস মঙ্গলবার দিনের শেষে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, গাজা থেকে ইসরাইলি সেনাদের সম্পূর্ণ প্রত্যাহার এবং যুদ্ধবিরতির সময়সীমা সম্পর্কিত সংশোধনীসহ হামাস মঙ্গলবার তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

বাইডেনের পরিকল্পনায়, জনসংখ্যাপূর্ণ প্রধান এলাকা থেকে ইসরাইলি সৈন্য প্রত্যাহারের আহ্বান জানানো হয়েছে এবং ছয় সপ্তাহের জন্য একটি যুদ্ধবিরতি কার্যকর হবে, আলোচকরা একটি স্থায়ী চুক্তিতে পৌঁছানোর জন্য যুদ্ধবিরতির এই মেয়াদ আরো বাড়ানো হবে।

মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস বলেছে, তারা হামাসের বক্তব্য ‘মূল্যায়ন’ করছে।

মার্কিন কর্মকর্তারা ব্যক্তিগতভাবে আশা করেছিলেন, অবিলম্বে সম্পূর্ণ চুক্তি গ্রহণ করার পরিবর্তে হামাস অন্তত কিছু পরিবর্তনের জন্য জোর দেবে। সেখানে ইসরাইলের সাথে পার্থক্য দূর করার জন্য যথেষ্ট সাধারণ ভিত্তি আছে কি-না সেটা দেখতে চান।

বেসামরিক নাগরিকদের ক্রমবর্ধমান ক্ষয়ক্ষতির কারণে বাইডেন এমন একটি যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটাতে আগ্রহী।

ব্লিঙ্কেন মঙ্গলবার ইসরাইলে বলেন, প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু পরিকল্পনায় নিজেকে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করেছেন, যদিও ইসরাইলি সরকারের উগ্র-ডানপন্থী সদস্যরা আনুষ্ঠানিকভাবে এটি সমর্থন করেনি।

ব্লিঙ্কেন মঙ্গলবার হামাসের গাজা-ভিত্তিক নেতা ইয়াহিয়া সিনওয়ারকে এই প্রস্তাব মেনে নেয়ার জন্য বলেন।

সূত্র : বাসস

আরাও পড়ুন... সেরা উক্তি