কাতারে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দেশটির ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে দ্বিতীয় বারের অনুষ্ঠিত ‘আওয়াল আল-আওয়াইল’ প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জন করেন মিসরের মোহাম্মদ সাদ আবদুল জলিল। গত রবিবার চূড়ান্ত বিজয়ীদের সম্মাননা সনদ তুলে দেন আওকাফ ও ধর্মবিষয়ক মন্ত্রী গানিম বিন শাহিন আল-গানিম।

গত ১২ দিন ধরে শেখ জাসিম বিন মোহাম্মদ বিন থানি আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতার আন্তর্জাতিক পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বিশ্বের ২৬টি দেশ থেকে ৮০ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় ৪০ জন অংশ নেন, যাদের মধ্যে ১০ জন উত্তীর্ণ হন। এর আগে ২০১৬ সালে প্রতিযোগিতাটি প্রথমবার অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

প্রথম স্থান অর্জনকারী সাদ আবদুল জলিল ২০১৯ সালে মিসরের পোর্ট সাইদ কোরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন।

২৭ বছর বয়সী এই তরুণ বর্তমানে উলুমুল কোরআন ও কিরাত বিষয়ে পড়াশোনা করছেন। কোরআনের ১০টি কিরাতে দক্ষতা অর্জনে সবার কাছে দোয়া চান তিনি।
কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে,

শেখ জাসিম বিন মোহাম্মদ কোরআন প্রতিযোগিতা ১৯৯৩ সাল থেকে শুরু হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে শুধু পুরো কোরআন হিফজের প্রতিযোগিতা চললেও পরবর্তী সময়ে অনেক শাখা করা হয়।

মানুষের মধ্যে কোরআন শেখার আগ্রহ তৈরি করতে বর্তমানে সব বয়সী নারী-পুরুষের জন্য পৃথকভাবে কোরআনের পাঁচটি অংশে প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। তা ছাড়া প্রবাসীরাও এ কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেন।

প্রতিযোগিতার আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান জাসিম ইউসুফ আল-সুলাইতি বলেন, ‘প্রায় তিন দশক আগে সব ধরনের মানদণ্ড অনুসরণ করে প্রতিযোগিতাটি কাতারে শুরু হয়। এর পর থেকে প্রতিবছর প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা বাড়ছে। এখন আন্তর্জাতিক পরিসরে প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

প্রতিযোগিতার বিচারক কমিটির প্রধান ড. আহমদ ঈসা আল-মিসারাবি বলেন, ‘এ ধরনের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা আয়োজনের মধ্য দিয়ে কাতার পবিত্র কোরআনের শিক্ষা প্রসারে অনন্য ভূমিকা রাখছে।

এর মাধ্যমে ছোট-বড় ও আরব-অনারব সবার মধ্যে হিফজের প্রতি আগ্রহ তৈরি হয়। হিফজের মাধ্যমে পবিত্র কোরআন সুরক্ষিত থাকবে এবং মুসলিম উম্মাহ অনন্তকাল বেঁচে থাকবে।’

সূত্র : দ্য পেনিনসুলা কাতার